ঢাকা, বুধবার, ১৬ জানুয়ারি ২০১৯, ৩ মাঘ ১৪২৫

টমেটো ও গাজর হাঁপানির ঝুঁকি কমায়

২০১৪ নভেম্বর ০৬ ১৩:০৪:৪৫
টমেটো ও গাজর হাঁপানির ঝুঁকি কমায়

পরিবেশ দূষণ ও খাদ্যদ্রব্য থেকে শুরু করে ওষুধের প্রতিক্রিয়ার কারণে অনেক দেশেই হাঁপানি রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এমনকি মায়ের বুকের দুধও এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট থাকতে পারে। এমতাবস্থায় আশার আলো দেখাচ্ছে টমেটো, গাজরসহ অন্যান্য সবুজ পাতাওয়ালা শাকসবজি। এখানে প্রত্যক্ষ ফল পাওয়া না গেলেও পরোক্ষভাবে যে বেশ ভালো ফল দেয় তা আমরা জানতে পেরেছি।

গবেষণায় দেখা গেছে, যে সব মহিলা প্রচুর টমেটো, গাজর ও সবুজ পাতাওয়ালা শাকসবজি খেয়ে থাকেন তারা বেশ কম সংখ্যায় হাঁপানিতে ভোগেন। এখানে প্রতিটি শাকসবজি সুনির্দিষ্ট ভূমিকা জানা না থাকলেও প্রাপ্তবয়স্কদের হাঁপানি থেকে এদের রক্ষাকারী ভূমিকা সুস্পষ্টভাবে জানা গেছে।

অন্য কিছু গবেষণায় জানা গেছে, শাকসবজি এন্টি অক্সিডেন্ট শ্বাসনালি রক্ষায় ভূমিকা রাখে। গাজর, টমেটোর রস ও পাতা কপিতে ক্যারোটেনয়েড নামে একটি উপাদান থাকে। এটি পরে ভিটামিন এ-তে পরিবর্তিত হয়। ভিটামিন অন্য অনেক কাজের সঙ্গে সঙ্গে দেহের রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতাকে শক্তিশালী করে এবং শ্বাসনালির আবরণী কলাকে সুসংহত করে। বিশেষজ্ঞের অভিমত, একজন মানুষের সুস্থতার জন্য প্রত্যহ কমপক্ষে পাঁচ ধরনের শাকসবজি ও ফলমূল খাওয়া উচিত। একই সঙ্গে প্রত্যেকের জানা জরুরি, তার জন্য কোন শাকসবজি বা ফলমূল বেশি উপকারী বা কোনটি বাদ পড়লে তাকে ঝুঁকির সম্মুখীন হতে হবে। সর্বোচ্চ তাজা সবুজ শাকসবজি ভক্ষণকারী সর্বনিম্নহারে হাঁপানিতে ভোগে। তবে এ ক্ষেত্রে অন্যান্য কিছু বিষয়ও খেয়াল রাখতে হবে। যেমন, দৈহিক ওজন সারা দিনে গৃহীত ক্যালরি, ধূমপান এবং ভিটামিন খাওয়া।

লেখক
ডা. শাহজাদা সেলিম
এমবিবিএস, এমডি (এন্ডোক্রাইনোলজি ও মেটাবলিজম)
এমএসিই (ইউএসএ)
হরমোন ও ডায়াবেটিস বিশেষজ্ঞ
শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল
এবং
কমফোর্ট ডক্টরস চেম্বার
১৬৫-১৬৬, গ্রীন রোড, ঢাকা।

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

স্বাস্থ্য টিপস এর সর্বশেষ খবর

স্বাস্থ্য টিপস - এর সব খবর



রে


রে