সভ্যতার সভ্য মানুষকে অক্টোপাসের মতো চারপাশ থেকে জড়িয়ে ধরতে চাচ্ছে ক্যান্সার, কর্কট রোগ। দেহের প্রায় প্রতিটি অঙ্গ-প্রত্যঙ্গেই ক্যান্সার হতে পারে। শুরুতে সব অঙ্গের ক্যান্সার সমান ঝুঁকিপূর্ণ না হলেও ম্যালিগন্যান্ট ক্যান্সার সবসময়ই ভয়াবহ। তবে দু’একটি অঙ্গের ক্যান্সার চিকিৎসার আওতায় আছে। কিন্তু বিপুলসংখ্যক ক্যান্সার এখনও জীবনসংহারি, বিশেষত প্রাথমিক পর্যায়ে ধরা না পড়লে বা চিকিৎসা শুরু করতে দেরি হয়ে গেলে।

সামগ্রিক বিচারে ক্যান্সারের হাত থেকে জীবনকে বাঁচানোর সর্বোত্তম পন্থা হলো ক্যান্সারের ঝুঁকিমুক্ত জীবনযাপন করা। ঝুঁকিগুলোর অনেকই আমরা ইচ্ছা করলে দূরে রাখতে পারব না; কিন্তু কিছু কিছু ঝুঁকিপূর্ণ আচরণ আমরা চাইলেই দূর করতে পারি। এসব নিয়ে ব্যাপক গবেষণা চলছে। সম্প্রতি গবেষণায় দেখা গেছে, তরকারির কিছু কিছু মসলা ক্যান্সার প্রতিরোধে ভূমিকা রাখে। এসব মসলা, এমনকি প্রস্টেট ক্যান্সার চিকিৎসায়ও সহায়ক হতে পারে; বিশেষ করে যদি এর সঙ্গে ফুলকপি, বাঁধাকপি ইত্যাদি সবজি মিশানো থাকে।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সির প্রাদেশিক বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জানিয়েছেন, হলুদ ও ফেনইথাইল আইসো থায়োসায়ানেট (PEITC) সংযুক্তভাবে প্রস্টেট ক্যান্সার রোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। PEITC বিভিন্ন রকম সবজিতে প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়। যেমন ফুলকপি, বাঁধাকপি, ব্রকোলি।

অতএব, ক্যান্সারমুক্ত সুস্থ দেহ আকাঙ্ক্ষা করলে প্রচুর শাকসবজি ও ফলমূল খেতে হবে।

লেখক
ডা. শাহজাদা সেলিম
এমবিবিএস, এমডি (এন্ডোক্রাইনোলজি ও মেটাবলিজম)
এমএসিই (ইউএসএ)
হরমোন ও ডায়াবেটিস বিশেষজ্ঞ
শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল
এবং
কমফোর্ট ডক্টরস চেম্বার
১৬৫-১৬৬, গ্রীন রোড, ঢাকা।